Connect with us

জেলা

একরাতের বৃষ্টিতেই নাজেহাল শহর রামপুরহাট।

Published

on

Social Update Bengali News Image
Image Credit Mrinal Kanti Das

• এক রাতের বৃষ্টিতে কঠিন সমস্যার মুখে রামপুরহাট শহরবাসীরা।

• জলোচ্ছাসের ফলে বন্ধ হয়েছে মেন রাস্তা। 

মৃণাল কান্তি দাস, রামপুরহাট : গত মঙ্গলবার রাত্রি থেকে বৃষ্টি শুরু হয় রামপুরহাট এবং তার আশেপাশের অঞ্চলে। গভীর রাত পর্যন্ত চলতে থাকে বৃষ্টিপাত। আর এই এক রাতের বৃষ্টিতেই নাজেহাল রামপুরহাট শহর। শহরের বিভিন্ন স্থানে জল জমেছে, নিকাশি ব্যবস্থার চরম ব্যর্থতা চোখে পড়ছে জায়গায় জায়গায়।

শহরের মধ্য দিয়ে গিয়েছে একটি ক্যানেল যার জলোচ্ছ্বাসের কারণের শহরবাসীদের বুধবার নানান সমস্যার সম্মুখীন হতেহয়। রাস্তার উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে নিকাশির জল, (সময় – দুপুর ১২.৫০) শহরের একদম মাঝখান দিয়ে চলে গিয়েছে দক্ষিণ ও উত্তর বাংলা সংযোগকারী রেল। কাজেই শহরের এপার থেকে ওপার যেতে হলে, বা রামপুরহাট এর উপর দিয়ে অন্য কোথাও যাওয়ার থাকলে এই রেললাইন পার করা বাধ্যতামূলক।

রেল পার করার শহরে মাত্র ২ টি জাইগা, এক রেল গেট (রেল ফটক) আরেকটি হল ছ-ফুকো। অন্যান্য শহরের মতই রেল গেটকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে একটি বাজার, কাজেই এটি বেস ঘিঞ্জি এলাকা সাথে আবার রেল গেট পরে থাকার আশঙ্কা। ফলে সাধারণ মানুষ খুব একটা ব্যবহার করেন না এই রাস্তা, বিশেষত সঙ্গে যদি কোন যানবাহন থেকে। পাথরবোঝাই ট্রাকটারের চল এই রাস্তায় বেশি।

জলমগ্ন রামপুরহাটের (সময় – দুপুর ১.১০)ছ-ফুকোর মধ্যে দিয়ে শহরের মেন রাস্তা যাওয়ার সাথে সাথে গিয়েছে এক ক্যানেল। আর এই ক্যানেলের প্লাবিত জলেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে মেন রাস্তা। অনেকেই এসে ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছেন রাস্তা জলেরতলায় থাকার ফলে। তাই শহরের এপার থেকে ওপার যেতে হলে এখন ভরসা কেবল রেলগেট। আর তার ফলে সৃষ্ট হয়েছে বিশাল জ্যাম।

করোনা পরিস্থিতিতে সকলকে মাস্ক ব্যবহার করার উপদেশ দিলেও বাস্তবে সেটি সম্পূর্ণরূপে মেনে চলছে কেও। আর এই ট্রাফিক জ্যামের ফলে কার্যত একে অপরের ঘাড়ে চেপে উঠে বসে সাধারণ মানুষ। ধুলিস্যাৎ হয়েছে সামাজিক দূরত্ব। রাতের মধ্যে বৃষ্টি থেমে গেলে দুপুর বেলাতেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার কোন লক্ষন নেই।

দুঃখের বিষয় এত জ্যাম হবার পরেও সেভাবে দেখা মেলেনি কোন ট্রাফিক পুলিশের।রেল গেটের আগে ট্রাফিক জ্যাম

জেলা

ফেসবুকে অর্মত্য সেনকে নিয়ে অসম্মানজনক পোস্ট! ABVP নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের।

Published

on

Social Update Bengali News Image
Image Source Facebook

নিজস্ব প্রতিনিধি : ফেসবুকে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনকে নিয়ে অসম্মানজনক পোস্ট করার অভিযোগে বিশ্বভারতীর এক ছাত্রনেতার নামে শান্তিনিকেতন থানায় অভিযোগ দায়ের করা হল। অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের (এবিভিপি) বিশ্বভারতী ইউনিটের সদস্য অপূর্ব শরদের নামে বাম সমর্থিত বিশ্বভারতীর ছাত্রছাত্রী ঐক্য মঞ্চ এই অভিযোগ দায়ের করল।

এর ফলে শান্তিনিকেতন আবারও মুখ্যমন্ত্রীর বোলপুর সফর চলাকালীন এই বিষয়টি ঘিরে নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল। বোলপুরের শান্তিনিকেতনে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনের বাড়ির নাম “প্রতীচী”। এই বাড়ির একটা অংশ বিশ্বভারতীর, বারবার এমনই দাবি করেছে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। এই মর্মে বিশ্বভারতীর সম্পত্তি বিভাগের তরফে রাজ্য সরকারকে একটি চিঠিও দেওয়া হয়েছে। নানা মহল নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদের বিরুদ্ধে বিশ্বভারতীর এমন অভিযোগ নিয়ে ইতিমধ্যেই সরব।

এরকম পরিস্থিতির মাঝেই ফেসবুকে অমর্ত্য সেনকে নিয়ে অসম্মানজনক পোস্ট করেছে বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপির নেতা অপূর্ব শরদ। ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন,” অমর্ত্য সেন দীর্ঘদিন ধরে ইংল্যান্ড, আমেরিকায় বসবাস করেন, সেখানেই পড়ান। ভারতের অর্থনীতির জগতে তাঁর অবদান একেবারে শূন্য।” এরপর তিনি অর্থনীতিবীদ অমর্ত্য সেনকে সমর্থনকারীদের প্রতিও আঙুল তুলেছেন।

Continue Reading

জনপ্রিয় পোস্ট